LG কোন দেশের কোম্পানি | এলজি কোম্পানির মালিক এবং সিইও কে ?

LG কোন দেশের কোম্পানি : বর্তমান সময়ে লোকেরা বিভিন্ন সময় ইউটিউব এবং গুগোল এ সার্চ করে জানতে চাই। যে এলজি কোন দেশের কোম্পানি।

এবং এলজি কোম্পানির মালিক কে এবং সিইও কে। আপনিও যদি এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান। তাহলে সঠিক একটি ওয়েবসাইটে প্রবেশ করেছেন।

LG কোন দেশের কোম্পানি | এলজি কোম্পানির মালিক এবং সিইও কে ?
LG কোন দেশের কোম্পানি | এলজি কোম্পানির মালিক এবং সিইও কে ?

আমরা আজ আমাদের এই আর্টিকেলে এলজি কোম্পানি সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করব।

এলজি হচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়ার একটি ইলেকট্রনিক প্রস্তুতকারক কোম্পানি। যা 1958 সালে, KOO IN-HWOI এর মাধ্যমে এই নামে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

কুরিয়ান যুদ্ধ এর পরে, স্থানীয় বাজার এর জন্য কনসিউমার ইলেকট্রনিক্স এবং হোম অ্যাপ্লায়েন্স, তোর কথা মাথায় রেখে কোম্পানিটি প্রতিষ্ঠিত হয়। এই কোম্পানিটির সদর দপ্তর দক্ষিণ কোরিয়ার সিউলে অবস্থিত।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রথম রেডিও সরঞ্জাম, রেফ্রিজারেটর, ওয়াশিং মেশিন, টেলিভিশন এয়ার কন্ডিশনার উৎপাদন করে।

এই কোম্পানিটি প্রাথমিকভাবে গোল্ড এর অধীনে কাজ করলেও পরবর্তী সময়ে। মানে অন 1995 সালে লাকি কেমিক্যাল এবং এল কেবল নামে অন্যান্য এলজি গ্রুপ কোম্পানি গুলোর সাথে যুক্ত হয়ে কাজ শুরু করেন।

অবশ্যই দেখুনঃ

বর্তমান সময়ে এলজি এলেক্ট্রনিকস হচ্ছে একটি বিশ্বব্যাপী ব্র্যান্ড। যা কনসিউমার ইলেকট্রনিক্স মোবাইল যোগাযোগ ও হোম এপ্লায়েন্স এবং বিক্রি করে থাকে।

তাছাড়া বাণিজ্যিক ব্যবহারের জন্য এটি বিভিন্ন ডিভাইস ও পণ্য তৈরি করে। যা বর্তমান বাজারে জনপ্রিয়তা অর্জন করছে।

LG কোম্পানির মালিক ও সিইও কে ?

এলজি তার ইলেকট্রনিক্স ব্যবসায় নেতৃত্ব দেয়ার জন্য সিইও নিয়োগ করেছেন WILLIAM CH. এই CEO 1987 সাল থেকে ইলেকট্রনিক্স এর সাথে জড়িত আছে।

তার সাম্প্রতিক ভূমিকার আগে তিনি এলজি কানাডার সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তারপরে এলজি অস্ট্রেলিয়া এবং এলজি ইউএসএ একই পদে নিযুক্ত ছিলেন।

তাছাড়া, SEONG JIN এলজি হোম এপ্লায়েন্স বিভাগের সভাপতি এবং সিইও। এলজি ইলেকট্রনিক্স কি কিওয়ান কে ভারতে ম্যানেজিং ডিরেক্টর হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছিল।

দক্ষিণ কোরিয়ার এলজি ইলেকট্রনিক্স 1997 সালে ভারতে চলে আসে। কোম্পানির গ্রেটার নয়ডায় একটি উৎপাদন ইউনিট আছে্

এবং একটি দ্বিতীয় ইউনিট আছে। এলইডি টেলিভিশন সেট, এয়ারকন্ডিশন, ওয়াশিং মেশিন, রেফ্রিজারেটর, বাণিজ্যিক এয়ারকন্ডিশন সিস্টেম এবং মনিটর তৈরি করে থাকে।

এলজি (LG) কোন দেশের কোম্পানি

এলজি হচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়া ভারতের ন্যাশনাল ইলেকট্রনিক্স কোম্পানি। প্রথম বিদেশী উৎপাদন অন 1982 সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শুরু হয়েছিল।

1994 গোল্ডস্টার আনুষ্ঠানিক ভাবে এলজি ইলেকট্রনিক্স এ পরিণত হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তারা ব্যবসা প্রসারিত করে। এলজি মার্কিন টেলিভিশন নির্মাতা জেনিথ কে অধিগ্রহণ করে এবং 1995 সালে বিশ্বের প্রথম সিডিএমএ ডিজিটাল মোবাইল চালু করেন।

তারপরও 999 সালে এলজি কোম্পানি টি ফিলিপসের সাথে একটি যৌথ উদ্যোগ করেছিল যে ডিসপ্লে নামে এখন পরিচিত রয়েছে।

এটি লিকুইড ক্রিস্টাল ডিসপ্লে এবং ডেভলপ করার প্রথম ধাপ। ইন্ডিয়ার বাজারে রেফ্রিজোরেটর সেগমেন্ট হচ্ছে, সবথেকে বড় ব্যবসা। যার মোট বিক্রি 34%, তারপর টিভি 21%,  ওয়াশিং মেশিন 20%, এসি 16%।

এলজি কোম্পানি এর ইতিহাস

ইলেকট্রনিক্স এর জগতে, কনসিউমার ইলেকট্রনিক্স এবং অ্যাপিয়ারেন্স। গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখে। 2005 এটি কনসিউমার ইলেকট্রনিক্স এর সর্ব সেরা 100 টি শব্দের মধ্যে একটি হয়ে ওঠেন।

অবশ্যই পড়ুনঃ

2009 সালে এর ডিসপ্লে উৎপাদন ইউনিট, বিশ্বের বৃহত্তম এলসিডি প্যানেল প্রস্তুতকারক হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন।

এলজি কোম্পানি 2010 সালে স্মার্টফোন তৈরি করা শুরু করেন। অরিজিনাল সরঞ্জাম নির্মাতা কোম্পানি গুলোর মধ্যে একটি। স্মার্টফোনের জন্য গুগলের অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে গ্রহণ করেন।

তারপর 2014 সালে গুগলের সাথে পার্টনারশিপ এ কোম্পানিটি অ্যান্ড্রয়েড Wear একটি ভিত্তি করে, এলজি ওয়াচ ঘোষণা করেন। তার পরের বছর কোম্পানি ওয়াচ লঞ্চ করে। এটি হচ্ছে প্রথমত স্মার্টওয়াচ। যেখানে ওয়াইফাই (wifi) স্মার্টওয়াচ ফিচার দেওয়া রয়েছে।

এলজি কোম্পানি যখন টেলিভিশন, ব্যক্তিগত কম্পিউটার, রেফ্রিজারেটর, মনিটর, অডিও, ভিডিও ইকুইপমেন্ট, ওয়াশিং মেশিন, এয়ার পিউরিফায়ার, ডিহিউমিডিফায়ার, বাণিজ্যিক স্থানের জন্য এয়ারকন্ডিশন এবং ভ্যাকুয়াম ক্লিনার উৎপাদন করেন্

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠান এলজি ফোন তৈরি করেছে প্রায় 25 বছর যাবত। এলজি সর্বপ্রথম আল্ট্রা ওয়াইড অ্যাঙ্গেল অনেকগুলো সেলফোন উদ্ভাবন করেন। অ্যাপল এবং স্যামসাংয়ের পরে এলজি উত্তর আমেরিকার তৃতীয় জনপ্রিয় স্মার্টফোন ব্র্যান্ড হিসেবে পরিচিত হয়।

বর্তমান সময়ে আমাদের বাংলাদেশ, অসংখ্য প্রশ্ন রয়েছে এল জি কোম্পানির তরফ থেকে। যেগুলো আমরা সবসময় আমাদের প্রয়োজনে ব্যবহার করে থাকি।

আরো পড়ুনঃ

শেষ কথাঃ

তো বন্ধুরা আজ আমাদের এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনাকে জানিয়ে দেওয়া হলো এলজি (lg) কোন দেশের কোম্পানি এবং এল জি কোম্পানির মালিক এবং সিইও কে।

আপনি যদি আমাদের দেওয়া উপরোক্ত আলোচনা মনোযোগ সহকারে পড়ে থাকেন। তাহলে আশা করা যায় এলজি সম্পর্কে আপনি পরিপূর্ণ ধারণা পেয়ে গেছেন। যদি আলোচনাটি না বুঝে থাকেন।

তাহলে দয়া করে প্রথম থেকে আবারও শেষ পর্যন্ত পড়বেন। তাহলে আশা করা যায়। আপনি এলজি কোম্পানি সম্পর্কে ধারণা নিয়ে নিতে পারবেন।

তো আমাদের আর্টিকেলটি আপনাদের কাছে কেমন লাগলো অবশ্যই কমেন্ট এর আশা করছি। আর বিশেষ করে আপনি যদি বিভিন্ন ধরনের কোম্পানির সম্পর্কে ধারণা পেতে চান। তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন ধন্যবাদ।

Leave a Comment