আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট [ঘরে বসে অনলাইন আয় করার উপায়]

আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট : বর্তমানে বিশ্বের অনেক লোক অনলাইনের মাধ্যমে কাজের সুযোগ পাচ্ছেন। তার মধ্যে সবথেকে জনপ্রিয় হচ্ছে আউটসোর্সিং বা ফ্রিল্যান্সিং।

আপনি যদি নিজের ঘরে বসে আউটসোসিং কাজ করতে চান তবে আপনাকে আউটসোর্সিং করার জন্য ভালো ওয়েবসাইট এর সাথে সংযোগ স্থাপন করতে হবে।

আমরা জানি বর্তমানে দেশে এবং দেশের বাইরে বহু কোম্পানি বা সংস্থা রয়েছে সেগুলোতে কাজ করার জন্য তারা দেশের এবং দেশের বাইরের কর্মীদের দিয়ে আউটসোর্সিং কাজ করিয়ে নেন।

আমরা জানি আউটসোর্সিং কাজ করার জন্য গুগলে অনেক ধরনের ওয়েবসাইট রয়েছে। কিন্তু সবগুলো সাইট ডিজে ভালো হবে তার কোনো গ্যারান্টি নেই। কারণ ওয়েবসাইটের মালিক আলাদা আলাদা তাই ওয়েবসাইট হয়ে থাকে ভিন্ন রকম।

আপনি যদি আউটসোর্সিং নিয়ে কাজ করতে চান তবে আপনাকে নির্দিষ্ট ধরনের কাজ পাওয়া যায় সেই সকল সাইট গুলোতে আপনাকে যুক্ত হতে হবে। আউটসোসিং কাজ করার আগেই আপনাকে বুঝে নিতে হবে যে ওয়েবসাইটটি বিশ্বস্ত কিনা।

তাই কাজ করার আগে আপনাকে প্রথমে আউটসোর্সিং এর জন্য সেরা ওয়েবসাইট টি বেছে নিতে হবে যেটাতে আপনি উপযোগী কাজ পেয়ে যাবেন যেখানে আপনি খুব সহজে আপনার ইচ্ছামত কাজ খুঁজে নিতে পারবেন সে সকল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে আপনি আউটসোর্সিং করার জন্য একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিবেন।

আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট [ঘরে বসে অনলাইন আয় করার উপায়]
আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট [ঘরে বসে অনলাইন আয় করার উপায়]

আউটসোর্সিং কি ?

আউটসোর্সিং বলতে এমন একটি বিষয় বুঝায়ে চ্যাটিং হচ্ছে আউটসাইড এর কাজ করার জন্য যেসব সমস্যা রয়েছে সেগুলোকেই আউটসোর্সিং বলা হয়। যেমন আপনাকে সঠিক ভাবে বুঝার জন্য আবারো বলছি আউটসোর্সিং হচ্ছে নির্দিষ্ট অফিস বা প্রতিষ্ঠান কাজের সূচনা করে আপনি আউট কাজের সার্চ করবেন যেমন দেশের বাহিরের কাজগুলো।

আউটসোর্সিং কাজটা বর্তমানে প্রতিষ্ঠান চাকরির মত হয়ে উঠছে দিন দিন। আউটসোর্সিং করে অনেকে নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে। আপনি জানলে অবাক হবেন যে আউটসোর্সিং করে মাসে প্রায় তিন লাখ টাকার ও বেশি আয় করা যায়।

এটা যদি আপনার কাছে অবিশ্বাস্য মনে হয় এটাই বাস্তব আপনার চারপাশে এমন অনেকে আছে যারা আউটসোর্সিং করে প্রতিমাসে লক্ষ লক্ষ টাকা নিজের ঘরে বসে ইনকাম করছে।

আপনি যদি আউটসোর্সিং করে টাকা ইনকাম করতে চান তবে নিজের ঘরে বসে থেকেই এই কাজটি করতে পারবেন। এর জন্য আপনাকে জানতে হবে ইংরেজি ভাষা এবং বাংলা ভাষায় কম্পিউটার টাইপিং করা এবং ইংলিশ স্পিকিং করা।

আউটসোর্সিং এর সুবিধা কি ?

আপনি যদি আউটসোর্সিংয়ের সুবিধা যাতে চান তবে এক কথায় উত্তর দেয়া যায় এই কাজের কোনো বাধা নেই এখানে আপনি মুক্ত আপনি এখানে নিজের ইচ্ছামত স্বাধীনতার শহীদ কাজ করতে পারবেন।

এখানে কাজ করার জন্য নির্দিষ্ট কোন সময় নেই আপনার ইচ্ছা অনুযায়ী যেকোনো সময় যেকোনো জায়গায় আউটসোর্সিং এর কাজটি করতে পারবেন।

আউটসোর্সিং কাজ করে বাংলাদেশের যেকোনো চাকরি করার থেকেও তিনগুণ বেশি টাকা ইনকাম করা যায়। আপনি যদি একজন শিক্ষিত বেকার হয়ে থাকেন তবে আপনাকে আমরা পরামর্শ দিয়েছে যে আপনি আউটসোর্সিং করে আপনার ক্যারিয়ার সুন্দর করে করতে পারেন।

প্রতিটি শিক্ষিত বেকারদের আউটসোর্সিং কাজে নিয়োজিত হওয়াটাই উত্তম কারণ বর্তমানে চাকরির বাজার অনেক সংকটে। তাই আপনি যদি চাকরির চিন্তা বাদ দিয়ে আউটসোসিং করেন তবে আপনার চাকরি করে যে পরিমাণ টাকা পাবেন তার তিনগুণ টাকা বেশি আয় করতে পারবেন প্রতিমাসে।

মনে করুন আপনি একটি সরকারি চাকরি পেলেন সেখানে আপনি প্রতি মাসে বেতন পাবেন সর্বোচ্চ 50 হাজার টাকা। আর আপনি যদি নিজের ঘরে বসে আউটসোসিং কাজ করেন তবে কম করে হলেও প্রতি মাসে তিন থেকে চার লক্ষ টাকা ইনকাম করে নিতে পারবেন।

আউটসোর্সিং এ কি কি কাজ করা যায়

  • সেলস এবং মার্কেটিং এর কাজ
  • ডিজাইন এর কাজ
  • ম্যানুফ্যাকচারিং এর কাজ
  • ওয়েব ডেভলপমেন্ট  এর কাজ
  • কাস্টমার সার্ভিস এর কাজ
  • গ্রাফিক ডিজাইন এর কাজ
  • একাউন্টিং এর কাজ
  • বুককিপিং ইত্যাদি

আপনি যদি আউটসোসিং করতে চান তবে উক্ত বিষয় গুলো অনুসরণ করে আপনি যেকোনো একটি বেছে নিয়ে আউটসোর্সিংয়ের কাজ শুরু করতে পারেন। আপনার কানে আপনাকে কিছু সহজ ওয়েবসাইট দেখাবো যেগুলো ব্যবহার করে আপনি আউটসোর্সিং এর কাজ করতে পারবেন।

আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট নিম্নরূপ

আজ আমি আপনাদের সাথে যে সকল আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট নিয়ে আলোচনা করব আপনি আপনার ইচ্ছামত আপনার যোগ্যতা ও দক্ষতা সাথে মিলে যায় এমন আউটসোর্সিং ওয়েবসাইট গুলোর তালিকা শেয়ার করব।

আমরা জানি বিশ্বব্যাপী কোম্পানিগুলোর কাজের ধরন পাল্টে যাচ্ছে। অধিকাংশ কোম্পানিগুলোই এখন সরাসরি লোকজন নিয়োগ না দিয়ে তাদের সব ধরনের অফিসিয়াল কাজগুলোর আউটসোর্স মার্কেটপ্লেসগুলোর থেকে করিয়ে নেয়া থাকে।

যারা ছাত্রজীবন থেকেই টাকা ইনকাম করতে চান তাদের জন্য সবথেকে সুখবর হচ্ছে আউটসোর্সিং। বর্তমানে আউটসোসিং একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ এবং এটি করে অনেক টাকা আয় করা যায়।

আপনি যদি চাকরি করার চেয়ে তিনগুণ টাকা বেশি আয় করতে চান তবে আপনি আউটসোর্সিংয়ের কাজ করতে পারেন। আমরা যে সকল আউটসোসিং এর কভার দেখাবো সেগুলো দেখতে নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

  • Upwork
  • Toptal
  • Freelancer
  • College recruiter
  • Guru

www.upwork.com | আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট

আপনার যদি আউটসোর্সিং করার জন্য ভালো ওয়েবসাইট করে থাকেন তাহলে আপনি এই upwork.com ওয়েবসাইটে কাজ করতে পারেন। আমরা জানি এই ওয়েবসাইটটি আমেরিকান ফ্রীলাঞ্চিং প্ল্যাটফর্ম হিসেবে পরিচিত।

এখানে ব্যবসা পরিচালনা করার জন্য উদ্যোগ ও ব্যক্তিরা সংযোগ স্থাপন করে থাকে। আপনি যদি এই সাইটে আউটসোর্সিংয়ের কাজ করতে চান তবে ঘন্টা ভিত্তিক কাজ করতে হবে।

আউটসোর্সিং কাজের ধরন অনুযায়ী ক্লায়েন্ট প্রতি ঘন্টার জন্য একটা নির্দিষ্ট টাকা ঠিক করে দিবে। আমি রুটি আর ফ্যানের কাজ করেন তবে ঘণ্টা হিসেবে টাকা আয় করতে পারবেন।

অটোমেটিক টাইম টেকার প্রতিমুহূর্তে কাজের ডাটা সংগ্রহ করে রাখে আর যারা ফ্রিল্যান্সারদের কাজ দিয়ে থাকে সেগুলো দেখে শিওর হয় যে তার কাজ কোন ফাঁকি দেওয়া হচ্ছে কিনা।

আপনি যদি এই সাইটে আউটসোর্সিংয়ের কাজ করেন তবে এখানে যে পরিমাণ টাকা আয় করবেন সেটা নিয়ে কোন জালিয়াতির মোকাবেলা করতে হবে না কারণ সে দায়িত্ব নিয়ে নেন। ঘন্টা হিসেবে আপনি যে পরিমাণ টাকা একাউন্টে জমা দেওয়ার বেশি পরিমাণ টাকা আপনি সাথে সাথেই নিয়ে নিতে পারবেন আপনার ব্যাংক একাউন্টে।

আপনি যদি অফ ওয়ার্ক ওয়েবসাইটে আউটসোসিং কাজ করেন তবে আজ একটি একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করে নিতে পারেন।

www.toptal.com | আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট

আমরা তানে টপটাল একটি আউটসোর্সিং ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম সরবরাহ করে যা সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার ডিজাইনার এবং ব্যবসার পরামর্শদাতাদের সাথে ব্যবসায়িক গুলি সংযুক্ত করে।

আমরা জানি টপটাল ওয়েবসাইটের 2010 সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এই সাইটে কাজ করলে আপনার পেমেন্ট নিয়ে চিন্তা করতে হবে না। আপনি যদি এখানে নিয়মিত আউটসোর্সিংয়ের কাজ গুলো করতে পারেন তবে প্রতি মাসে প্রায় 1 লক্ষ টাকার বেশি ইনকাম করতে পারবেন।

বর্তমান সময়ে আউটসোর্সিং করার জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় ওয়েবসাইটটি হচ্ছে টপটাল। আপনি যদি আউটসোসিং করতে আগ্রহী হন তবে এই ওয়েবসাইটে একটি একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করে নিতে পারেন।

www.freelancer.com | আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট

আউটসোর্সিং ওয়েবসাইট গুলোর মধ্যে আরও একটি অন্যতম ওয়েবসাইট হচ্ছে freelancer.com. সিলাচার একটি অস্ট্রেলিয়ান ক্লাউড সোর্সিং মার্কেটপ্লেস ওয়েবসাইট।

আমরা জানি এই ওয়েবসাইটটি 2009 সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। বর্তমানে অনেকে পড়াশোনার পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করে নিজের খরচ নিজেই চালাতে সক্ষম হচ্ছেন।

অনেকে আবার অল্প টাকার চাকরি বাদ দিয়ে এসব চাকরিতে ডাবল ইনকাম করার জন্য মাঠে নেমেছে। এই কাজটি একটি স্বাধীনতা মূলক কাজ আপনি যখন ইচ্ছা তখন কাজ করতে পারবেন।

আমরা উক্ত আলোচনায় যে সকল আউটসোর্সিং ওয়েবসাইট দেখেছি সেগুলো ওয়েবসাইটের প্রধান পার্থক্য হচ্ছে আপনি যদি অন্য ফ্রিল্যান্সারদের সাথে প্রতিযোগিতা করেন নিজের দক্ষতা প্রমাণ করতে তাহলে এতেই খুলে যাবে আপনারা এর উৎস ভবিষ্যৎ সম্ভাবনার দ্বার।

আপনাদের ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা ইনকাম করতে চান তবে আজ এই একটি একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করে নিতে পারেন freelancer.com থেকে।

www.collegerecruiter.com| আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট

আপনি যদি collegerecruiter.com থেকে আউটসোর্সিং কাজ করতে চান তবে বিশ্বাসের সাথে কাজ করতে পারেন। আমরা জানি এই ওয়েবসাইটটি অনেক আগের পুরোনো এটি প্রতিষ্ঠিত হয় অন 1991 সালে।

আমি যদি এই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে আউটসোর্সিংয়ের কাজ খুঁজেন তবে ভালো করে মানের কাজ পেয়ে যাবেন এবং প্রতিদিন কাজ করে প্রতিদিন টাকা উইথড্র করতে পারবেন। তাই এখানে যদি কাজ করার ইচ্ছা থাকে তবে আজ একটি একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করে নিতে পারেন।

শেষ কথাঃ

আমাদের ওয়েবসাইটে আসবে আপনার সাথে শেয়ার করা হয়েছে আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট গুলোর তালিকা নিয়ে। আপনি যদি আউটসোর্সিং বিষয়ে কাজ করতে চান তবে আমাদের এই পোষ্টের লেখাগুলো অনুসরণ করে যে কোন ওয়েব সাইটে প্রবেশ করে কাজ করে টাকায আয় করতে পারবেন।

ট্যাগ: আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট [ঘরে বসে অনলাইন আয় করার উপায়] আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট [ঘরে বসে অনলাইন আয় করার উপায়] আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট [ঘরে বসে অনলাইন আয় করার উপায়] আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট [ঘরে বসে অনলাইন আয় করার উপায়] আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট [ঘরে বসে অনলাইন আয় করার উপায়] আউটসোর্সিং এর ওয়েবসাইট [ঘরে বসে অনলাইন আয় করার উপায়]

আমাদের এই আর্টিকেলটি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তবে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না। আমাদের ওয়েবসাইট থেকে নতুন নতুন অনলাইন ইনকাম করার সমাধান জানতে নিয়মিত ভিজিট করুন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

Leave a Comment